মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

আমাদের অর্জনসমূহ

মসলা গবেষণা কেন্দ্র কর্তৃক ১৬টি মসলা জাতীয় ফসলের উপর এ পর্যন্ত সর্বমোট ৩৬টি জাত (পেঁয়াজের ৫টি, মরিচের ৩টি, রসুনের ৪টি, আদার ৩টি, হলুদের ৫টি, ধনিয়ার ২টি, মৌরী ২টি, মেথীর ২টি, কালোজিরার ১টি, গোলমরিচের ১টি, পাতা পেঁয়াজের ১টি, আলুবোখারার ১টি, বিলাতী ধনিয়ার ১টি, দারুচিনি ১টি, তেজপাতা ১টি এবং পানের ৩টি) উদ্ভাবিত হয়েছে, যা বর্তমানে কৃষক পর্যায়ে চাষাবাদ হইতেছে। তাছাড়া উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষে উৎপাদন প্রযুক্তি, মৃত্তিকা ও পানি ব্যবস্থাপনা, পোকামাকড় ও রোগ বালাই ব্যবস্থাপনা, পোষ্ট-হারভেষ্ট প্রযুক্তিসহ আরও ৬৬টি উন্নত প্রযুক্তি উদ্ভাবিত হইয়াছে। এছাড়া আর্থ-সামাজিক, বাজারজাতকরণ ও ভেলু চেইন, কৃষক পর্যায়ে গবেষণার প্রভাব যাচাই বিষয়ে আরও গবেষণা কার্যক্রম চলমান আছে। ১৯৯৫- ৯৬ ইং সালে এ দেশে ১.৩৬ লক্ষ হেক্টর জমিতে মসলা জাতীয় ফসলের উৎপাদন ছিল ৩.১৯ লক্ষ মেঃ টন কিন্তু বর্তমানে ৩.৯৫ লক্ষ হেক্টর জমিতে মসলা জাতীয় ফসল উৎপাদন হচ্ছে ২৪.৮৮ লক্ষ মেঃ টন। তুলনামূলকভাবে জমির পরিমান উল্লেখযোগ্য আকারে বৃদ্ধি না পেলেও মসলা ফসলের মোট উৎপাদন বর্তমানে বৃদ্ধি পেয়েছে ৭.৮০ গুন।

 

উদ্ভাবিত জাতের তালিকা (৩৬)

ফসলের নাম

জাতের নাম

১. পেঁয়াজ

১. বারি পেঁয়াজ-১ (শীতকালীন)

২. বারি পেঁয়াজ-২ (গ্রীষ্মকালীন)

৩. বারি পেঁয়াজ-৩ (গ্রীষ্মকালীন)

৪. বারি পেঁয়াজ-৪ (শীতকালীন)

৫. বারি পেঁয়াজ-৫ (গ্রীষ্মকালীন)

২. পাতা পেঁয়াজ 

৬. বারি পাতা পেঁয়াজ-১

৩. রসুন

৭. বারি রসুন-১

৮. বারি রসুন-২

৯. বারি রসুন-৩

১০. বারি রসুন-৪

৪. মরিচ

১১. বারি মরিচ-১

১২. বারি মরিচ-২ (গ্রীষ্মকালীন)

১৩. বারি মরিচ-৩ (শীতকালীন)

৫. আদা

১৪. বারি আদা-১

১৫. বারি আদা-২

১৬. বারি আদা-৩

৬. হলুদ

১৭. বারি হলুদ-১ (ডিমলা)

১৮. বারি হলুদ-২ (সিন্দুরী)

১৯. বারি হলুদ-৩

২০. বারি হলুদ-৪

২১. বারি হলুদ-৫

৭. ধনিয়া

২২. বারি ধনিয়া-১

২৩. বারি ধনিয়া-২

৮. বিলাতি ধনিয়া

২৪. বারি বিলাতি ধনিয়া-১

৯. মৌরী

২৫. বারি মৌরী-১

২৬. বারি মৌরী-২

১০. কালোজিরা

২৭. বারি কালোজিরা-১

১১. গোল মরিচ

২৮. বারি গোল মরিচ-১

১২. আলুবোখারা

২৯. বারি আলুবোখারা-১

১৩. মেথী

৩০. বারি মেথী-১

৩১. বারি মেথী-২

১৪. দারুচিনি

৩২. বারি দারুচিনি-১

১৫. তেজপাতা

৩৩. বারি তেজপাতা-১

১৬.পান

৩৪. বারি পান-১

৩৫. বারি পান-২

৩৬. বারি পান-৩

 

উদ্ভাবিত প্রযুক্তির তালিকা (৬৬)

১। মরিচ, পেয়াঁজ এর বীজতলা ও নার্সারী ব্যবস্থাপনা।

২। মরিচের উৎপাদন কলাকৌশল, ফসল সংগ্রহোত্তর ব্যবস্থাপনা ও সংরক্ষণ।

৩। পেঁয়াজ ও রসুনের উৎপাদন কলাকৌশল, ফসল সংগ্রহোত্তর প্রযুক্তি, বীজ উৎপাদন কলাকৌশল, সংরক্ষণ গুদামজাতকরণ।

৪। আদা ও হলুদের উৎপাদন, প্রযুক্তি ও সংরক্ষণ।

৫। আন্তঃ ফসল হিসাবে আখের সাথে পেঁয়াজ/রসুনের চাষ।

৬। আন্তঃ ফসল হিসাবে আলুর সাথে পেঁয়াজ/রসুনের চাষ।

৭। আন্তঃ ফসল হিসাবে আলুর সাথে রসুন ও পটলের চাষ।

৮। আন্তঃ ফসল হিসাবে মূলার সাথে মরিচের চাষ।

৯। আন্তঃ ফসল হিসাবে মরিচের সাথে পেঁয়াজের চাষ।

১০। আন্তঃ ফসল হিসাবে কলা, নারিকেল, সুপারি, পেয়ারার সাথে আদা/হলুদের চাষ।

১৭. গ্রীষ্মকালীন পেঁয়াজের কিউরিং সময় ও নেকের দৈর্ঘ্য নির্ধারণ

১৮. মরিচের চুষি পোকা ও মাকড়ের সমন্বিত দমন পদ্ধতি

১৯. পেঁয়াজের সাথে আন্তঃফসল হিসেবে গাজর চাষ করে চুষি পোকা দমন

২০. আদার পাউডার  তৈরী

২১. ঢিবি (জরফমব)পদ্ধতিতে আদা রোপণের উন্নত প্রযুক্তি

২২. মুখী কচুর সাথে শীতকালীন পেঁয়াজের আন্তঃফসল চাষ

২৩. ধনিয়ার কান্ড ফোলা (ঝঃবস মধষষ)রোগের সমন্বিত দমন

২৪. বিনা চাষে মালচ ব্যবহার করে মান সম্পন্ন রসুন উৎপাদন

২৫. বারি মরিচ-২ ও বারি মরিচ-৩ উৎপাদনের আধুনিক কলাকৌশল

২৬. বারি হলুদ-৪ ও বারি হলুদ-৫ উৎপাদনের আধুনিক কলাকৌশল

২৭. বারি পাতা পেঁয়াজ-১ এর উৎপাদন কলাকৌশল

২৮. বারি আলুবোখারা-১ এর উৎপাদন কলাকৌশল

২৯. বারি বিলাতি ধনিয়া-১ এর উৎপাদন কলাকৌশল

৩০. চারার মাধ্যমে হলুদ উৎপাদন

৩১. মরিচের ফলছিদ্রকারী পোকার সমন্বিত দমন পদ্ধতি

৩২. গ্রীষ্মকালীন মরিচ ও পেঁয়াজের আন্তফসল চাষ

৩৩. সেচের মাধ্যমে পেয়াজের মানসম্পন্ন বীজ উৎপাদন

৩৪. আলুবোখারার অংগজ বংশ বিস্তারে গুটি কলমের সময় ও হরমোন মাত্রা

৪৯. পেঁয়াজের বীজ ফসলে পার্পল ব্লচ রোগ দমন পদ্ধতি

৫০. কন্দ উৎপাদনে পেঁয়াজের র্পাপল ব্লচ ও স্টেমফাইলিয়াম ব্লাইট রোগ দমন

৫১. পেঁয়াজ কন্দের ফলন বৃদ্ধিতে সঠিক সেচ পদ্ধতি

৫২. সঠিক দুরত্বে চারা রোপণ ও সঠিক মাত্রায় সার প্রয়োগ করে মরিচের ফলন বৃদ্ধি

৫৩. সঠিক মাত্রায় সালফার প্রয়োগের মাধ্যমে পেঁয়াজের ফলন বৃদ্ধি

৫৪. সঠিক সময়ে রোপণ করে পেঁয়াজের বীজের ফলন ও সজীবতা বৃদ্ধি

৫৫. চুন এবং বোরন প্রয়োগে রসুনের ফলন এবং সংরক্ষণ ক্ষমতা বৃদ্ধি

৫৬. বীজ শোধন ও মাটিতে চুন প্রয়োগের মাধ্যমে আদার কন্দ পঁচা রোগ নিয়ন্ত্রণ

৫৭. জৈব মালচিং এর মাধ্যমে হলুদের উৎপাদন বৃদ্ধি

৫৮. গৌণ পুষ্টি উপাদানের (গরপৎড় হঁঃৎরবহঃ)  মাধ্যমে মরিচের উৎপাদন বৃদ্ধি

৫৯. গ্রীষ্মকালীন পেঁয়াজের বীজ উৎপাদন কলাকৌশল

৬০. সমন্বিত ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে আদার কন্দ পঁচা রোগ নিয়ন্ত্রণ

৬১. আদা উৎপাদনের পদ্ধতি ও বীজের আকার

৬২. সঠিক মাত্রায় নাইট্রোজেন ও পটাশিয়াম প্রয়োগ করে আদার ফলন বৃদ্ধি

৬৩. হলুদের ছত্রাকজনিত কন্দ পঁচা রোগ নিয়ন্ত্রণ

৬৪. শলুক ফসলের সারের মাত্রা

৬৫. প্রাইমিং ও হরমোন প্রয়োগে বিলাতি ধনিয়া বীজের অংকুরোদ্গম হার বৃদ্ধি করা

৬৬. সঠিক পরিমাণে নাইট্রোজেন ব্যবহার এবং সঠিক সময়ে পেঁয়াজ কর্তন করে কন্দ উৎপাদন এবং গুণগত মান বৃদ্ধি ।

ছবি


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)



Share with :
Facebook Twitter